করোনা আবহে অনারম্বরে মা তারার আর্বিভাব তিথি

জেলা

চাঁদসদাগরের প্রতিষ্ঠিত নিয়ম আজও অনড় হিন্দুধর্মে। দুর্গাপুজোর পর শুক্লা চতুর্দশীর দিনে তিনিই প্রথম মা তারাকে তারাপীঠ মহাশশ্মান থেকে নিয়ে এসে মন্দিরে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। সেই থেকে এই চিরাচরিত রীতিতে ছেদ পড়েনি এক বিন্দুও। সেই মত শুক্রবারও চতুর্দশীর দিন মা তারাকে মূল মন্দিরের গর্ভগৃহ থেকে বের করে নিয়ে বিরাম মঞ্চে রাখা হয়। সাধারন সময়ে মা তারা মন্দিরে উত্তরমুখে অবস্থান করেন কিন্তু এদিন মা তারা পশ্চিম মুখে থাকেন। প্রতিবছর এদিন মা তারাকে বিরামমঞ্চে দেখার জন্য দেশের বিভিন্নপ্রান্ত থেকে লক্ষাধিক পুর্নার্থীর সমাগম হয় তারাপীঠে,কিন্তু করোনা আবহে এবছরের চিত্রটা সম্পূর্নরুপে ভিন্ন।শুধুমাত্র স্থানীয়রা আর হাতে গোনা কয়েকজন পুর্নার্থী এসেছেন বলে জানান স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। পুজোর ডালি বিক্রেতা থেকে হোটেল মালিক সকলের চোখে মুখে বিষাদের সুর,স্বাস্থ্যবিধি মেনে মন্দির খুললেও ট্রেন পরিষেবা না শুরু হওয়ায় ভক্তের দেখা নেই ।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *