কুলতলির গৃহস্থে বাঘের হানা,আতঙ্কিত গ্রামবাসীরা

0
1

অন্যান্য দিনের মতোই সোমবার সন্ধ্যার পর সুন্দরবনের জঙ্গল লাগোয়া এলাকা অর্থাৎ কুলতলি ব্লকের মৈপীঠ-বৈকন্ঠপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বৈকন্ঠপুর ছ’নম্বর গ্রামের বাসিন্দা ভীম নায়েক ও তার পরিবার বাড়িতেই সাংসারিক কাজকর্ম সারছিল। হঠাতই নদীর পাড় সংলগ্ন গৃহস্থের লাগোয়া গোয়াল ঘরে আচমকাই গরুর আর্তনাদ শুনতে পায় পরিবারের সকলে। কিছু একটা বিপদ ঘটেছে বুঝেই বাড়ি থেকে বেরিয়ে গোয়ালঘরে যাবার আগেই সেখান থেকে বাঘের গর্জন শুনতে পান ভীম নায়েকের পরিবার। স্বাভাবিকভাবেই বুঝতে পারেন বাঘ এবার সরাসরি হানা দিয়েছে গোয়ালঘরে। এরপর বাড়ির লোকজন ঘরের মধ্যে ঢুকে বাঘ বাঘ বলে চিৎকার শুরু করে দেয়। আওয়াজ শুনে এলাকার লোকজন তটস্থ হয়ে পড়ে। খবর দেওয়া হয় স্থানীয় মৈপীঠ উপকূল থানাতে। দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বিশাল পুলিশ বাহিনী। লোকালয়ে বাঘ চলে আসায় তড়িঘড়ি বনদপ্তরের কর্মীরা রাতেই সেখানে বোটে করে জাল,ঘুমপাড়ানি বন্ধুক এমনকি লোহার খাঁচা নিয়ে পৌছে যায়। ততক্ষণে বাঘটি গোয়ালঘরে থাকা গরুটিকে মেরে দিয়ে আশ্রয় নেয় গ্রামের ইটের রাস্তায় বলে স্থানীয় সুত্রে খবর।এদিকে স্থানীয় লোকজনকে নিয়ে বাজি পটকা ফাটিয়ে বাঘটিকে জঙ্গলে ফেরত পাঠানোর চেষ্টা শুরু হয়। কিন্তু ভয় তো দূরের কথা লোকজনের সামনেই রাস্তায় বসে বিশ্রাম নিতে দেখা যায় বাঘটিকে। চোখের সামনে বাঘ বাবাজিকে বসে থাকতে দেখে মোবাইলে সেই দুর্লভ মুহূর্ত ক্যামেরা বন্দী করতে থাকে এলাকার যুবকরা। রাতে বাঘটি আশ্রয় নেয় নদীর চরে থাকা ম্যানগ্রোভের ঝোপে। সেখানে নাইলনের জাল দিয়ে ঘিরে ফেলার কাজে হাত লাগায় বন কর্মীরা। লোকালয়ে বাঘ চলে আসায় রীতিমত আতঙ্কিত এলাকাবাসী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here