৩০ জুনের পর থেকে কি বদলাবে নিয়ম? প্রশ্ন ব্যাঙ্ক গ্রাহকদের

কলকাতা দেশ

করোনা মোকাবিলায় দেশজুড়ে লকডাউন ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। টানা লকডাউনে দেশের অর্থনৈতিক ব্যাবস্থা ভেঙে পড়ায় ধীরে ধীরে আনলকিং-এর পথে হাঁটছে কেন্দ্রীয় সরকার। তবে লকডাউনের জেরে মানুষের আর্থিক অবস্থার কথা ভেবেই গ্রাহকদের জন্য এক বিশেষ ঘোষণা করেছিলেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। লকডাউনের পর থেকে তিন মাস ব্যাঙ্কের যেকোনো সেভিংস অ্যাকাউন্টে নূন্যতম ব্যালেন্স রাখা বাধ্যতামূলক না বলে জানান তিনি। মার্চ মাসে লকডাউনের পর থেকে অর্থাৎ এপ্রিল, মে ও জুনের জন্য লাগু হয় এই নিয়ম। তবে এই ছাড় আরও বাড়ানো হবে কিনা, তা এখনও জানানো হয়নি অর্থমন্ত্রক বা ব্যাঙ্কের পক্ষ থেকে।

ব্যাঙ্কগুলি নিজেদের নিয়ম ও হিসেব অনুযায়ী ঠিক করে থাকে নূন্যতম ব্যালেন্সের পরিমাণ। সেই পরিমাণ টাকা প্রত্যেক গ্রাহককেই তার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে রাখতে হয়। তা না থাকলে গ্রাহকদের অ্যাকাউন্ট থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা জরিমানা হিসেবে নিয়ে থাকে ব্যাঙ্কগুলি। লকডাউনের পর সরকারের তরফে জানানো হয় আগামী তিন মাস নূন্যতম ব্যালেন্স না রাখলেও কোনো জরিমানা নিতে পারবে না ব্যাঙ্ক। তবে সেই নিয়ম জুন মাসের পরও লাগু থাকবে তা এখনও জানা যায়নি।

যদিও সরকারি ঘোষণার আগেই গ্রাহকদের জন্য এই ছাড় লাগু করে ভারতের সবচেয়ে বড় রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া। যেখানে এর আগে মেট্রো শহরগুলোর জন্য ৩০০০ টাকা, শহরতলির ক্ষেত্রে ২০০০ টাকা এবং গ্রামাঞ্চলের ক্ষেত্রে ১০০০ টাকা সেভিংস অ্যাকাউনাটে রাখা বাধ্যতামূলক ছিল। তা না রাখলে জরিমানা নেওয়া হত ৫ থেকে ১৫ টাকা। এমনকি এটিএম থেকে টাকা তোলার জন্য দেওয়া চার্জের ক্ষেত্রেও ছাড় দেওয়া হয়। যেকোনো এটিএম থেকে তোলার জন্য কোন অতিরিক্ত চার্জ লাগবে না বলে জানানো হয় অর্থমন্ত্রকের তরফ থেকে। সেই ছাড়াও লাগু করা হয় লকডাউন পরবর্তী তিন মাস অর্থাৎ জুন মাস পর্যন্ত। কিন্তু ৩০ জুনের পরও এই ছাড় দেওয়া হবে কিনা, তা নিয়ে এখনও কিছু জানানো হয়নি অর্থমন্ত্রক ও ব্যাঙ্কগুলির তরফে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *