স্বাস্থ্যপরীক্ষা করে বিনা খরচায় ভিন রাজ্যের শ্রমিককে বাড়ি ফিরিয়ে দিল রাজ্য সরকার

জেলা রাজ্য

বাদুড়িয়া থেকে ১১টি সরকারি বাসে ২২৫জন পরিযায়ী শ্রমিক পাড়ি দিল বিহার ও ঝাড়খন্ডে। বসিরহাট মহকুমার বাদুড়িয়া ব্লকের যশাইকাটি ও তারাগুনিয়ার বেশ কয়েকটি ইঁটভাটার প্রায় ২২৫ জন পরিযায়ী শ্রমিককে মেডিকেল চেকআপ করে তাদের নিজ রাজ‍্যে পাঠানো হল। চিকিৎসক অনিল চন্দ্র দাস সহ স্বাস্থ্যকর্মীদের নেতৃত্বে এদের স্বাস্থ্য পরীক্ষাও করা হয়। বাদুড়িয়ার বিডিও ত্রিভুবন নাথ বলেন, রাজ‍্যের স্বরাষ্ট্র দপ্তরের নির্দেশ মতো যাতে এরাজ্যে থাকা অন‍্য রাজ‍্যের শ্রমিকরা সুস্থভাবে তাদের রাজ্যে ফিরে যেতে পারে তার জন্য সবরকম ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সম্পূর্ণ বিনা খরচায় তাদের রাজ্যে ফিরিয়ে দেবে প্রশাসন। পাশাপাশি তাদের বাড়িতে গিয়ে ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টিন থাকার নির্দেশও দিয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তর। গত তিন বছর আগে বিহার ও ঝাড়খন্ডের যুবক-যুবতী, মহিলা, পুরুষ এইসব ভাটাগুলিতে ইঁট কাটা ও কাঁচা মাটি দিয়ে ইট তৈরি করা সহ ভাটার বিভিন্ন কাজের সঙ্গে যুক্ত হতে এসেছিল। ইতিমধ্যে দেশজুড়ে পরিযায়ী শ্রমিককে যে যার রাজ্যে ফিরিয়ে নেওয়ার নির্দেশিকা জারি করেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র দপ্তর। তাই ২২৫ জন ভাটা শ্রমিকের স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও সরকারিভাবে পরিবহনের ব্যবস্থা করল প্রশাসন। সম্পূর্ণ বিনা খরচায়‌ তাদেরকে ভিন রাজ্যে নিজের বাড়িতে ফিরিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করল রাজ্য সরকার। শুক্রবার তারাগুনিয়া বারো মন্দির মাঠে রীতিমতো মেডিকেল ক্যাম্প করে তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো হয়। পাশাপাশি তাদেরকে ভাটা মালিকের পক্ষ থেকে হাসান গাজীর উদ্যোগে পেট ভরে খাইয়ে মাছ, ডাল, সব্জি ও ভাত পাশাপাশি খাদ্যদ্রব‍্য প‍্যাকেট বন্দি করে পার্সেলের ব্যবস্থা করা হয়। যাতে তারা রাস্তায় কোন সমস্যায় না পড়েন। তারপর তাদের এগারোটি সরকারি বাসে তুলে দেন প্রশাসনের কর্তারা। তারা চলে যাবেন বিহার ও ঝাড়খন্ডের বিভিন্ন গ্রামে। ভাটা শ্রমিক লক্ষ্মী দলুইরা বলেন, যেখানে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে থেকে পায়ে হেঁটে পরিযায়ী শ্রমিকরা রাজ্যে ফিরছে। এমনকি মৃত্যুর ঘটনাও ঘটছে। সেখানে বাংলায় এক উল্টো পুরাণ দেখা গেল। এই পরিষেবা পেয়ে রীতিমতো খুশি শ্রমিক থেকে শ্রমিক পরিবার। তারা ধন্যবাদ দিয়েছে রাজ্য সরকারকে এভাবে তাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *