মহিষাদল রাজগড়ের বৈশাখী আড্ডা আজ লকডাউনে স্তব্ধ

জেলা রাজ্য

পূর্ব মেদিনীপুর : কথা ছিল দেখা হবে একে অপরের। তাও আবার কোনো এক বৈশাখী বিকেল বেলায়। কালবৈশাখী ঝড়ের চোখরাঙানি ও রাজগড়ের মাধুর্যপূর্ণ আড্ডা পরিপূর্ণ করবে একে অপরকে। তুমি বলবে নজরুল, আমি বলবো শরৎ। কিন্তু এ বৈশাখে বিশ্বকবি তোমারেও করি আহ্বান। আজি এ বৈশাখী দুয়ারে ছড়িয়ে পড়ুক বিশ্বকবি তোমারই বাণী। মুখরিত হয়ে উঠুক সুর ও ছন্দ। এরমাঝেই জমে উঠবে সুখ- দুঃখের আড্ডা। কিন্তু সবকিছুতে কোথাও যেন ছন্দপতন ঘটাল নোভেল করোনা ভাইরাস। নোভেল করোনার ভয়াল থাবা কেড়ে নিয়েছে স্বাভাবিক জনজীবনের ছন্দ। মহিষাদল রাজগড় আজ রাজগড়ের জায়গাতেই থাকলেও রোজ বিকেলের সেই আড্ডা কোথাও যেন বৈশাখী বাতাসে বিলীন হয়ে গিয়েছে। রাজগড় আজ জনমানবশূণ‍্য হয়ে খাঁ খাঁ করছে। শতাব্দী প্রাচীন মহিষাদল রাজপরিবারের হাত ধরেই একসময় গড়ে উঠেছিল রাজবাড়ির আম বাগান। যা এখন স্থানীয় ভাষায় মহিষাদলের রাজগড় হিসেবেই পরিচিত। আর এখানেই রোজ বিকেল হয়ে জমে উঠতো দেদার আড্ডা। ধোঁয়া ওঠা গরম চায়ের কাপে আলতো চুমুক সাথে বন্ধু-বান্ধবীদের সঙ্গে আড্ডা। সবকিছুই যেন কোথাও করোনা গ্রাসে বিলীন হয়ে গিয়েছে। মহিষাদলের রাজগড় এখন সকাল থেকে সন্ধ্যে সবসময়ই জনমানবশূন্য হয়ে খাঁ খাঁ করছে। বৈশাখী বাতাসে আজও দুলে উঠেছে কচি আম ধরা গাছের ডালগুলিও। টুপটাপ শব্দ করে মাটিতে ঝরে পড়ছে নরম কচি আম। কিন্তু তা আজ কুড়ুনোর জন্য কেউ আর হুমড়ি খেয়ে পড়ে না। ঘুগনিপট্টির ঘুগনির প্লেটগুলো আজও কেমন যেন পিছু ডাকে সকলকে। কিন্তু আজ যে সকলে ঘরবন্দি। লকডাউন চলায় রাজগড় এর সেই বিকেলের আড্ডা গত কয়েক মাস ধরে কোথায় যেন হারিয়ে গিয়েছে। স্থানীয় মহলে প্রচলিত রয়েছে, মহিষাদলের এই রাজগড় নাকি প্রেমের জায়গা। পাশের মহিষাদল রাজ হাই স্কুল, গয়েশ্বরী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় ও কলেজের ছাত্র ছাত্রীদের প্রেমের সূচনা হয় নাকি এই মহিষাদল রাজগড় থেকেই। লকডাউনে সমস্ত প্রেমপর্ব ও আড্ডা সব কিছুই বন্ধ। রোজ বিকেলে বন্ধুবান্ধব নিয়ে গড়ের আমবাগানের তলায় বসতো আড্ডা। আড্ডা শেষে সিনেমা মোড়ের প্রাচীন ঘুগনি পট্টিতে জমিয়ে খাওয়া দাওয়ার পর বাড়িমুখী হত সকলে। কিন্তু সমস্ত কিছু আজ করোনা গ্রাসে বিলীন হয়ে। মহিষাদলের ছাত্রী সম্পূর্ণা গিরি বলেন, “একসময় বিকেল হলেই রাজগড়ে বন্ধুবান্ধবের নিয়ে আড্ডা বসতো ঠিকই কিন্তু করোনার জন্য সমস্ত কিছুই বন্ধ হয়ে গিয়েছে। এখন আমরা সকলেই ঘরবন্দি।” মহিষাদলের প্রাক্তণ শিক্ষক তথা কবি অশোক কুমার লাটুয়া বলেন, “মহিষাদলের রাজগড়ে বৈশাখী বিকেলে আজ নেই কোনো আড্ডা, নেই কোনো গল্পগুজব, নেই সেই দৃশ্য হাতে হাত রেখে কথা বলা আর ভবিষ্যতের স্বপ্নের মায়াজাল বোনা। হঠাৎ লকডাউনে প্রেমের ছন্দপতন। জীবন আবার সহজ সরল হলে রাজগড়ের আদুরে বিকেল আবার সবাইকে কাছে ডেকে নেবে। এখন শুধু অপেক্ষা আর অপেক্ষা।” সবমিলিয়ে মহিষাদলের রাজগড় আজ কেমন যেন ডেকে বলছে, “আয় আর একটিবার আয় রে সখা, প্রাণের মাঝে আয়। মোরা সুখের দুখের কথা কব, প্রাণ জুড়াবে তায়….”

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *