প্রধানমন্ত্রীর পেনশন যোজনায় পেতে পারেন ৩৬,০০০ টাকা

দেশ রাজনীতি

অসংগঠিত ক্ষেত্রে কর্মরত মানুষদের জন্য ইতিমধ্যেই তিন প্রকার বিশেষ পেনশনের কথা ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। প্রধানমন্ত্রী শ্রমযোগি মাধবন যোজনা, প্রধানমন্ত্রী কিষাণ মাধবন যোজনা ও লঘু ব্যাপারী পেনশন যোজনা। এই তিন বর্গের মানুষের জন্য পেনশনের সুযোগ করে দিয়েছিলেন মোদি সরকার। জানা গেছে, এখন পর্যন্ত এই যোজনার মাধ্যমে দেশের ৬৪,৪২,৫৫০ জনের নাম নথিভুক্ত করা হয়েছে।
এই প্রকল্পে নাম নথিভুক্ত করা ব্যক্তি বছরে ৩৬,০০০ টাকা পেনশন পাবেন অর্থাৎ প্রতিমাসে ৩,০০০ টাকা করে। বৃদ্ধ বয়সে যা মানুষকে মাথা উঁচু করে বাঁচার জন্য সাহায্য করবে।
প্রধানমন্ত্রী শ্রমযোগি মাধবন যোজনা সূচনা হয়েছিল ২০১৫ সালের ৫ মার্চ। অসংগঠিত ক্ষেত্রে যারা কাজ করেন, তারা পেতে পারেন এই সুবিধা। ৫ মে ২০২০ পর্যন্ত এই প্রকল্পের আওতাভুক্ত হয়েছেন ৪৩,৮৪,৫৯৫ জন। অন্যদিকে ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ প্রধানমন্ত্রী কিষাণ মাধবন যোজনার সূচনা হয়েছিল ঝাড়খন্ডে। এই প্রকল্প কৃষকদের জন্য। এই প্রকল্পের মাধ্যমে ১২ কোটি প্রান্তিক কৃষক, যাদের কাছে ২ হেক্টর পর্যন্ত কৃষি যোগ্য জমি আছে, তারা পেতে পারেন এই সুবিধা। এই পর্যন্ত এই প্রকল্পে আওতাভুক্ত হয়েছেন ২০,১৯,২২০ জন কৃষক। ছোট ব্যবসায়ীদের জন্য লঘু ব্যাপারী পেনশন যোজনার কথা ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। এই প্রকল্পে যে সকল ছোট ব্যবসায়ীরা বছরে ১.৫ কোটি টাকার নীচে রোজগার করে তারাই সুবিধা পাবেন।
তবে এই তিনটি পেনশন প্রকল্পের ক্ষেত্রেই কিছু শর্ত আরোপ করেছে সরকার। যেমন এই প্রকল্পগুলিতে নাম নথিভুক্ত করার ক্ষেত্রে ব্যক্তির বয়স হতে হবে ১৮ থেকে ৪০ এর মধ্যে। যাদের ইপিএফ, ইএসআই নেই অথবা আয়করদাতা নন, তারাই কেবল এই প্রকল্পগুলির সুবিধা পাবেন। আবেদনকারীর আধার কার্ড, মোবাইল নম্বর ও ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্ট বাধ্যতামূলক। বয়সের অনুপাতে প্রিমিয়ামের জন্য দিতে হবে ৫৫ থেকে ২০০ টাকা। ৬০ বছরের পর থেকে ৩,০০০ টাকা করে প্রতি মাসে পেনশন পাবেন আবেদনকারীরা। এখনও পর্যন্ত যারা নাম নথিভুক্ত করতে পারেননি, তারা নিজেদের নাম নথিভুক্ত করে এই প্রকল্পগুলির আওতায় এসে নিশ্চিত করতে পারেন নিজেদের ভবিষ্যত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *