দিলীপ ও সায়ন্তনের চিকিৎসা করানো দরকার: জ্যোতিপ্রিয়

জেলা রাজ্য

দিলীপ ঘোষ ও সায়ন্তন বসুর চিকিৎসা প্রয়োজন। ওঁদের দু’জনকে দিল্লির এইমস হাসপাতালে ভর্তি করা দরকার। রবিবার উত্তর ২৪ পরগনার গোবরডাঙায় একটি দলবদল কর্মসূচির শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এমনই মন্তব্য করলেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ সম্প্রতি বলেছেন, বদল চাই, বদলাও চাই। দিলীপকে ছাপিয়ে গিয়ে বিজেপির আর এক নেতা সায়ন্তন বসু থানা জ্বালিয়ে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। দিলীপের বিতর্কিত এই মন্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে জ্যোতিপ্রিয় বলেন, ‘ওঁর শিক্ষাগত যোগ্যতার অভাব আছে। ওঁর সম্পর্কে বিশেষ কিছু বলব না। শুধু এটুকুই বলব, বাংলার সংস্কৃতিতে এসব চলবে না। কোনও দায়িত্বশীল রাজনীতিবিদ এমন কথা বলতে পারেন না।’ সায়ন্তন সম্পর্কে আলাদা করে জ্যোতিপ্রিয় বিশেষ কিছু বলেননি। কেবল বিজেপির দুই নেতাকে কটাক্ষ করে খাদ্যমন্ত্রী বলেছেন, ‘ওঁরা অশিক্ষিত। ওদের দিল্লির এইমস হাসপাতালে চিকিৎসা করানো দরকার।’ এদিন গোবরডাঙা, গাইঘাটা, ঠাকুরনগর, চাঁদপাড়া ও বনগাঁ থেকে বেশ কিছু মানুষ তৃণমূলে যোগদান করেছেন। জ্যোতিপ্রিয়র দাবি, ‘বিজেপির কয়েকজন নেতা-সহ মোট সাড়ে তিনশো কর্মী-সমর্থক আমাদের দলে যোগদান করেছেন।’ তারপরই তাঁর সংযোজন, ‘আগামী ৩১ ডিসম্বরের মধ্যে উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় বিজেপির দখলে থাকা সমস্ত পঞ্চায়েত তৃণমূল হয়ে যাবে। আমরা কাউকে জোর করে তৃণমূলে নেব না। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নযজ্ঞে সামিল হতেই তাঁরা তৃণমূলে যোগদান করবেন।’ এদিন দলবদলের ওই কর্মসূচিতে হাজির ছিলেন বনগাঁ দক্ষিণের বিধায়ক সুরজিৎ বিশ্বাস, গাইঘাটা পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি গোবিন্দ দাস-সহ অন্যান্য নেতারা।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *