ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক করার দাবিতে জমায়েত হকারদের

জেলা রাজ্য

ট্রেনে বা স্টেশনে যারা পণ্য বিক্রি বা ফেরি করতেন সেই হকারদের এখন শিরে সংক্রান্তি। একসময় বেকারত্বের যন্ত্রনা থেকে মুক্তি পেতে হকারি করার পথ বেছে নিলেও দেশব্যাপী লক ডাউনে নতুন করে বেকারত্বের বিষপান করতে হচ্ছে তাঁদের। ট্রেন বন্ধ থাকায় রুজি রোজগারের প্রশ্নে তাঁরা যেমন অসহায় ঠিক তেমনই তাঁদের ভবিষ্যৎ ঘিরে আশঙ্কার কালো মেঘ। তাঁরা ভয় পাচ্ছেন তাঁদের উচ্ছেদ না হতে হয় স্টেশন প্লাটফর্ম থেকে। মূলত তৃণমূলের শ্রমিক আইএনটিটিইউসি সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত বারাসাত শাখার হকার্স ইউনিয়নের রেল হকাররা বৃহস্পতিবার একজোট হলেন বারাসাত স্টেশন প্লাটফর্মে। তাঁরা জানালেন রাজ্য সরকারের সহায়তা পেয়ে বারাসাতে অন্তত আটশো হকারের পরিবার কোনোক্রমে নুন ভাত খেয়ে প্রাণে বেঁচে আছেন। কিন্তু ট্রেন চলছে না। তাঁরা চান দ্রুত ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হোক। কারণ তাঁদের জীবনজীবিকা যাত্রী সাধারণের ওপরে নির্ভরশীল। একইসাথে তাঁদের জেহাদ, করোনা ভাইরাস আক্রমণকে অছিলা করে রেল দপ্তর যদি তাঁদের উচ্ছেদ করতে চায় সেক্ষেত্রে তাঁরা অনমনীয় মনোভাব দেখিয়ে আমৃত্যু লড়বেন। কোনো পরিস্থিতিতেই তাঁরা তাঁদের জীবিকাস্থল ছেড়ে পিছু হটবেন না। তাঁরা জানান কেবল আইএনটিটিইউসি নয়, যেকোনো শ্রমিক সংগঠনের সাথে যুক্ত হকারদের জীবন জীবিকা আজ বিপন্ন। তাঁদের বাঁচার পথ সম্পূর্ণ রুদ্ধ হলে তাঁরা বৃহত্তর আন্দোলনের পথে যেতে অঙ্গীকারবদ্ধ। তাঁদের আর্জি, মানবিক ভাবে রেল দপ্তর ও কেন্দ্র তাঁদের জীবনজীবিকার বিষয় ভাবুক। ভাইরাস মোকাবিলার যেকোনো যুক্তিযুক্ত সতর্কতামূলক ব্যবস্থা ও সমাধান মেনে নিতে তাঁরা সদাপ্রস্তুত। তাঁদের একমাত্র বক্তব্য, স্বাধীন দেশে বাঁচতে দেওয়া হোক রেল হকারদের।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *