কাকদ্বীপে প্রশাসনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী

জেলা রাজ্য

আমফান পরিস্থিতি নিয়ে কাকদ্বীপে প্রশাসনিক বৈঠক করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শনিবার দুপুর বারোটা থেকে মুখ্যমন্ত্রী সুন্দরবন উপকূলবর্তী আমফানে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলো হেলিকপ্টার যোগে ঘুরে দেখেন। এদিন দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার কুলতলী, ডায়মন্ডহারবার, জয়নগর, কুলপি, গঙ্গাসাগর, ঘোড়ামারা দ্বীপ, নামখানা, পাথরপ্রতিমা, কাকদ্বীপ এলাকাগুলি পরিদর্শন করেন আকাশপথে। এরপর কাকদ্বীপ মহাকুমা শাসকের কার্যালয়ে প্রশাসনিক বৈঠকে উপস্থিত হন মুখ্যমন্ত্রী। প্রশাসনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী পরিষ্কারভাবে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের সভাধিপতি শামীমা শেখকে নির্দেশ দেন যে দপ্তরে যা অর্থ রয়েছে তা দিয়ে এখন ছোট ছোট কাজ হাতে নিতে হবে। এবং সমস্ত কাজ কর্ম জেলাশাসকের সমন্বয়ে করতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, এই মুহূর্তে যদি কোন রেশন দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়ে। তাহলে সেই সমস্ত রেশন দোকান গুলি প্রাথমিকভাবে অন্যত্র স্থানান্তরিত করে রেশন ব্যবস্থা চালু রাখতে হবে। সেই সাথে পঞ্চায়েতের অধীনে রাস্তার কাজ গুলো করতে হবে। জেলাশাসককে বলেন, সদস্য ও পঞ্চায়েত সমিতি ও জেলা পরিষদ সদস্য এবং বিধায়কদের নিয়ে ভিডিও কনফারেন্স করতে হবে। আর খাবারের টান পড়লে তাকে জানাতে বলেন মুখ্যমন্ত্রী। কাকদ্বীপের এই প্রশাসনিক বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, গোসাবা, কুলপি, ক্যানিং, সাগর, পাথরপ্রতিমা বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক গান ও মথুরাপুর লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ চৌধুরী মোহন জাতুয়া, জয়নগর লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ প্রতিমা মন্ডল, রাজ্যসভার সাংসদ শুভাশিস চক্রবর্তী, সংখ্যালঘু উন্নয়ন মন্ত্রী এবং সুন্দরবন উন্নয়ন মন্ত্রী। এই সময় চুরি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে, সে বিষয়টি নজর রাখার জন্য মুখ্যমন্ত্রী পুলিশ প্রশাসনকে নির্দেশ দেন। প্রায় ঘন্টা খানেক ধরে চলে এই প্রশাসনিক বৈঠক।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *